দিনাজপুরে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা গত ২৪ ঘন্টায় নতুন আক্রান্ত ৩৫ জনসহ মোট আক্রান্ত ৫৮৯৩ জন

মোঃ ফরহাদ রহমান, দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি: দিনাজপুরে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন ৩৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় করোনায় আক্রান্ত রোগির সংখ্যা দাড়িয়েছে ৫৮৯৩ জন। বিস্তারিত

নওগাঁ জেলায় একদিনে আক্রান্ত ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় নতুন করে ৩ ব্যক্তির মৃত্যু ঃ নতুন আক্রান্ত ৬৭ জন।

নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি : করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত এবং মৃত্যু নওগাঁ জেলায় একদিনে নতুন রেকর্ড গড়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় ৩ জন মৃত্যুবরন করেছেন এবং নতুন করে ৬৭ জন আক্রান্ত হয়েছেন। বিস্তারিত

দিনাজপুরের আয়শা এমএমআর হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন

মোঃ শাহাদৎ হোসেন শাহ্ধসঢ়;, দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি \ শৈশব ও কৈশোর কেটেছে তার নিজ বাড়ী কাটাবাড়ী গ্রামে। তিন বোন এক ভাইয়ের পরিবারে দ্বিতীয় সন্তান তিনি। বাবাও ছিলেন হোমিও চিকিৎসক। বাবা বিস্তারিত

অনলাইন ডেস্ক:  দেশে করোনার টিকার দ্বিতীয় ডোজ প্রয়োগ শুরুর পর এ পর্যন্ত টিকা নিয়েছেন ৯ লাখ ৩০ হাজার ১৫১ জন।বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যে দেখা গেছে, এ পর্যন্ত দুই ডোজ মিলিয়ে ৬৬ লাখ ১৭ হাজার ৩৬ জন অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি টিকা নিয়েছেন। এদিন বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত টিকা নেয়ার জন্য নিবন্ধন করেছেন ৭০ লাখ ৮৮ হাজার ৪৬৯ জন।

গতকাল একদিনেই টিকা নিয়েছেন এক লাখ ৯৬ হাজার ৯৭৬ জন। এর মধ্যে প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন ১০ হাজার ৫৭২ জন। এ পর্যন্ত টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৫৬ লাখ ৮৬ হাজার ৮৮৫ জন।

৮ এপ্রিল থেকে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে তৈরি অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনার টিকার দ্বিতীয় ডোজ প্রয়োগ শুরু হয়। এরআগে গত ৫ এপ্রিল সকাল থেকে দ্বিতীয় ডোজ টিকার জন্য এসএমএস পাঠানো শুরু হয়েছে। এসএমএসে দেয়া তারিখ অনুযায়ী আগের টিকাদান কেন্দ্র থেকে দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিতে হবে।

বাংলাদেশে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা কোভিশিল্ড দেয়া হচ্ছে। এই টিকার দুটি ডোজ নিতে হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, ঢাকা মহানগরের ৪৭টি টিকাদান কেন্দ্রে বৃহস্পতিবার ২৯ হাজার ৩২৪ জন দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন। এদিন প্রথম ডোজ নিয়েছেন ২১৭২ জন।

এদিকে বিভাগ ভিত্তিক হিসাবে ঢাকা বিভাগে ‌সবচেয়ে বেশি ‘৬৩ হাজার ৪১ জন দ্বিতীয় ডোজ’ টিকা নিয়েছেন। এদিন ঢাকা বিভাগে প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন ৩৮১৯ জন।

ময়মনসিংহে ৯ হাজার ৬৯৬ জন, চট্টগ্রামে ৩৮ হাজার ৬১৪ জন, রাজশাহীতে ২২ হাজার ৯১ জন, রংপুরে ১৭ হাজার ১৮৩ জন, খুলনায় ২৪ হাজার ৩৫৭ জন, বরিশালে ৮ হাজার ১৭৩ জন এবং সিলেট বিভাগে ১৩ হাজার ৮২১ জন করোনার টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন।

করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছে ৯ লাখ মানুষ

অনলাইন ডেস্ক:  দেশে করোনার টিকার দ্বিতীয় ডোজ প্রয়োগ শুরুর পর এ পর্যন্ত টিকা নিয়েছেন ৯ লাখ ৩০ হাজার ১৫১ জন।বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যে দেখা গেছে, এ পর্যন্ত দুই ডোজ মিলিয়ে বিস্তারিত

রাজধানীর মতিঝিল এজিবি কলোনীতে ফ্রি ডেন্টাল ক্যাম্প। রাজধানীর মতিঝিল এজিবি কলোনীতে ফ্রি ডেন্টাল ক্যাম্প। ডাক্তার ফয়সাল হোসেন সোহাগ আয়োজনে ফ্রি ডেন্টাল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ১০ হইতে বিকাল ৪টায় রাজধানীর এজিবি কলোনীতে ডেন্টাল ক্যাম্প হয়েছে । প্রায় ২ অর্ধশতাধিক ব্যক্তিকে দাঁতের জেনারেল চেকআপ, ওরাল হাইজেনিক বিষয়ে পরামর্শ দেয়া হয়। ডাক্তার ফয়সাল হোসেন সোহাগ নেতৃত্বে এই চিকিৎসা আয়োজন করেন । সাথে আছেন ৭ জন বি.ডি.এস. ডাক্তার ১। ডাঃ মোঃ ফয়সাল হোসেন ২। ডাঃ নিশাত সাঈদা ৩ । ডাঃ আরফানুল ইসলাম ৪। ডাঃ আবদুর রহিম ৫। ডাঃ আতিয়া রহমান সহ মোট ৭ জন । এসময় সকল শ্রেণীর মানুষের পাশে দাঁড়ান । ডাঃ ফয়সাল হোসেন সোহাগ জানান অনেক অসহায়-দুস্থ মানুষ আছেন যারা ভিজিট দিয়ে ডাক্তার দেখাতে পারেন না তাই আজ এই ক্যাম্প। সকল মানুষের পাশে দাঁড়াতেই এবং সুচিকিৎসা দেওয়াই আমার মূল উদ্দেশ্য ফয়সাল বলেন আমি সবার দোয়া চাই । আরও বলেন আমাদের চেম্বারে আসলে অসহায় মানুষদের ফ্রি চিকিৎসা করব।

রাজধানীর মতিঝিল এজিবি কলোনীতে ফ্রি ডেন্টাল ক্যাম্প।

রাজধানীর মতিঝিল এজিবি কলোনীতে ফ্রি ডেন্টাল ক্যাম্প। রাজধানীর মতিঝিল এজিবি কলোনীতে ফ্রি ডেন্টাল ক্যাম্প। ডাক্তার ফয়সাল হোসেন সোহাগ আয়োজনে ফ্রি ডেন্টাল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ১০ হইতে বিকাল ৪টায় রাজধানীর বিস্তারিত

সুমন ইসলাম বাবু,লালমনিরহাট :আজ সকালে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে কোভিট১৯ টিকাদান শুভ উদ্ধোধন করেন জেলা প্রশাসক আবু জাফর।  এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানা, হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ড,সিরাজুল হক, সিভিল সার্জন নিমেলেন্দু রায়, বীরপ্রতীক আজিজুল হক। টিকাদান উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সরকারি কমকতা কমচারী, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি,  সমাজসেবক, সাংবাদিক সহ বিভিন্ন শ্রেনি পেশার মানুষ নিকা নেয়।  

লালমনিরহাট জেলায় কোভিট১৯ টিকাদান শুভ উদ্ধোধন করেন জেলা প্রশাসক আবু জাফর

সুমন ইসলাম বাবু,লালমনিরহাট :আজ সকালে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে কোভিট১৯ টিকাদান শুভ উদ্ধোধন করেন জেলা প্রশাসক আবু জাফর।  এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানা, হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ড,সিরাজুল হক, সিভিল সার্জন নিমেলেন্দু বিস্তারিত

  মোঃ আল হেলাল চৌধুরী, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) থেকেঃ সারাদেশের ন্যায় দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে আজ সকাল সাড়ে ১০টায় ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভবনে কোভিড-১৯ টিকাদান কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিকভাবে ফিতা কেটে প্রধান অতিথি হিসেবে উদ্বোধন করেন উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আতাউর রহমান মিল্টন। টিকাদান কর্মসূচিতে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম টিকা গ্রহণ করেন ফুলবাড়ী বিজিবির সহকারী নায়েব সুবেদার (প্রধান সহকারী) উত্তম কুমার সিংহ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপত্বি করেন উপজেলান স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ মশিউর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রিয়াজ উদ্দীন, দিনাজপুর ৪২-বিজিবি’র সেক্টরের মেডিকেল অফিসার লেঃ কর্ণেল সাইফুল ইসলাম, পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব মাহমুদ আলম লিটন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মঞ্জ রায় চৌধুরী, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নীরু সামসুন্নাহার, ফুলবাড়ী থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ ফখরুল ইসলাম।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ফুলবাড়ী উপজেলা খয়ের বাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান আবু তাহের মন্ডল, বেতদীঘি ইউপি চেয়ারম্যান শাহ মোঃ আব্দুল কুদ্দুস, দৌলতপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ মন্ডল, আলাদীপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোজাফ্ফর হোসেন, কাজিহাল ইউপি চেয়ারম্যনা মানিক রতনসহ ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা, কর্মচারী, নার্স, ডাক্তার ও গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মশিউর রহমান জানান, উপজেলায় প্রথম ধাপে ৪ হাজার করোনা ভেক্সিন বরাদ্ধ পাওয়া গেছে। প্রথম দিনে ৫০ জনের টার্গেট রয়েছে। দুপুর পর্যন্ত ৩৬ জনের শরিরে ভ্যাক্সিন দেয়া হয়েছে এর মধ্যে ২৭ জন বিজিবি সদস্য।

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে প্রথম করোনার টিকা নিলেন বিজিবির প্রধান সহকারী উত্তম কুমার সিংহ

  মোঃ আল হেলাল চৌধুরী, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) থেকেঃ সারাদেশের ন্যায় দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে আজ সকাল সাড়ে ১০টায় ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভবনে কোভিড-১৯ টিকাদান কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিকভাবে ফিতা কেটে প্রধান অতিথি হিসেবে বিস্তারিত

আবুল কাশেম রুমন, সিলেট: সিলেট জেলা প্রেসক্লাব সভাপতি আল
আজাদ প্রথম করোনা টিকা নিলে নিজ বডিতে। রবিবার (৭
ফেব্রæয়ারি) করোনার টিকা নেয়া আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর তিনি
সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজে করোনার টিকা নেন।
টিকা গ্রহণকালে আল আজাদ এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন,
গণমাধ্যমকর্মীসহ সংবাদ সংশ্লিষ্টদের সাহস যোগাতেই আমি
করোনার টিকা নিয়েছি। এতে ভয়ের কোন কারণ নেই। করোনা
পরিস্থিতিতে নিরাপদ স্বাস্থ্যের জন্য সকলকে করোনার টিকা নেয়ার জন্য
আহŸান জানান তিনি। মানুষের জীবন রক্ষার জন্য সরকারের এই মহৎ
উদ্যোগের জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীসহ সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন
করেন।

সিলেট জেলা প্রেসক্লাব সভাপতি আল আজাদ প্রথম করোনা টিকা নিলে

আবুল কাশেম রুমন, সিলেট: সিলেট জেলা প্রেসক্লাব সভাপতি আল আজাদ প্রথম করোনা টিকা নিলে নিজ বডিতে। রবিবার (৭ ফেব্রæয়ারি) করোনার টিকা নেয়া আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর তিনি সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজে বিস্তারিত

রামপাল (বাগেরহাট) প্রতিনিধি: রামপালে প্রথম করোনার টিকা নিয়ে টিকা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাধন কুমার বিশ^াস।
রোববার (০৭ ফেব্রæয়ারী) সকাল ১০ টায় রামপাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে টিকা কার্যক্রমের আয়োজন করা হয়।
এরপর করোনার টিকা নেন রামপাল থানার ওসি (তদন্ত) নজরুল ইসলাম ও এসআই মনিরুল ইসলাম। টিকা কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রামপাল উপজেলা চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন,উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সুকান্ত কুমার পাল সহ অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।
উপজেলা চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশবাসীর জন্য যে করোনার টিকা ব্যাবস্থা করেছেন তার জন্য ধন্যবাদ জানাই। রামপালে ৫ হাজার ডোজ করোনার টিকা এসেছে,তার মধ্যে আজ ৬৩ জনকে করোনার টিকা প্রয়োগ করতে পারবো।
ইউএনও সাধন কুমার বিশ^াস জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে করোনার টিকা নিয়ে আমরা যেটা দেখি সেটা নিছকই গুজব। আমি করোনার টিকা নিয়েছি,আমার কোনো পাশ^প্রতিক্রিয়া হয়নি। সাধারন যে টিকাগুলো আমরা নিয়ে থাকি এগুলো তার মতই। তিনি সবাইকে করোনার টিকা গ্রহনের আহব্বান জানিয়েছেন।

রামপালে প্রথম করোনা টিকা নিলেন įইউএনও” সাধন কুমার বিশ্বস

রামপাল (বাগেরহাট) প্রতিনিধি: রামপালে প্রথম করোনার টিকা নিয়ে টিকা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাধন কুমার বিশ^াস। রোববার (০৭ ফেব্রæয়ারী) সকাল ১০ টায় রামপাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে টিকা কার্যক্রমের বিস্তারিত

মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা \ দেশের সর্ব উত্তরের জেলা নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলায় মাঘ মাসে ঠান্ডার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় হাসপাতালে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। গত ২ দিনের শৈত্য প্রবাহ ও প্রবল কুয়াশায় সর্দি কাশিসহ শ্বাসকষ্ট ও নিউমোনিয়া রোগীর সাথে সাথে কোল্ড ডায়েরিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন অনেকেই। বিশেষ করে বয়োবৃদ্ধ ও শিশুরা এই শীতের তীব্রতায় বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এদের মধ্যে অনেকেই ভর্তি হয়েছেন সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে। অন্যরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হওয়ার চেষ্টা করছেন।
সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘন্টায় অর্থাৎ রবিবার দিনব্যাপী প্রায় ৪০ জন রোগী ভর্তি হয়েছে শীতজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে। এদের মধ্যে শ্বাসকষ্ট নিয়ে ৮ জন শিশু ও ৮ জন বয়স্ক ব্যক্তি, ডায়েরিয়ায় আক্রান্ত ১৭ জন নারী পুরুষ এবং ৭ জন শিশু রয়েছে। এদিকে সোমবারও শীতের প্রকোপ থাকায় আরও রোগী ভর্তি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
সৈয়দপুর শহরের হাতিখান ক্যাম্পের মাসুদের মেয়ে মাহমুদা (১), নীলফামারীর সদরের শিমুলতলী এলাকার মমিনুলের মেয়ে জান্নাতুল মাওয়া (৬) সহ অনেক শিশু রবিবার সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তারা শ্বাষকষ্ট ও ডায়েরিয়ায় আক্রান্ত।
এর বাইরে উপজেলার প্রায় এলাকাতেই শীতের কারণে রোগাক্রান্ত হওয়া রোগীর খবর পাওয়া গেছে। যাদের বেশিরভাগই স্থানীয় ওষুধের দোকানের গ্রাম্য চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়ে সেখান থেকেই ওষুধ কিনে খেয়েছেন। বিশেষ করে পুরুষ রোগীরা। তবে নারী রোগীদের অনেকেই ইউনিয়নের কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে গিয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন।
সৈয়দপুর বিমানবন্দর আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা যায়, গত কয়েকদিন থেকেই সৈয়দপুরসহ উত্তরাঞ্চলে শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পেয়েছে। মৃদু শৈত্য প্রবাহ সহ ঘন কুয়াশায় আচ্ছন্ন থাকছে এ অঞ্চলের জনপদ। দিনের শেষে বিকাল থেকেই বাড়তে থাকে কুয়াশা ও ঠান্ডা। গত দুইদিন থেকে রাতে ঝিরি ঝিরি বৃষ্টির মত করে কুয়াশা ঝরেছে। দুপুর পর্যন্ত কুয়াশার পরিমান অনেক বেশি থাকায় যানবাহনগুলো দিনের বেলাতেও লাইট জ্বালিয়ে চলাচল করছে। সে সাথে শীতল হাওয়া প্রবাহমান থাকায় শীতের প্রচন্ডতা বিদ্যমান থাকছে সারাদিন রাতই। সোমবার সৈয়দপুরে তাপমাত্রা ছিল ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোঃ ওমেদুল হাসান সরকার বলেন, গত দুই দিনের তাপমাত্রা কম থাকায় এবং হিমেল বাতাস থাকায় শীতজনিত রোগের প্রকোপ বেড়েছে। ফলে হাসপাতালেও রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। তাদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। পর্যাপ্ত ওষুধও রয়েছে।

সৈয়দপুরে প্রচন্ড ঠান্ডায় হাসপাতালে বাড়ছে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা

মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা \ দেশের সর্ব উত্তরের জেলা নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলায় মাঘ মাসে ঠান্ডার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় হাসপাতালে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। গত ২ বিস্তারিত

অনলাইন ডেস্ক: মাদারীপুরের শিবচরে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটনের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ১৯টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ২২ শত পরিবারের মাঝে খাবার সহায়তা বিতরণ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে চৌধুরী ফাতেমা বেগম পৌর অডিটোরিয়াম থেকে দলীয় নেতাকর্মী দিয়ে ইউনিয়নে ইউনিয়নে পৌঁছে দেওয়া হয় চাল, ডাল, তেলসহ বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য।

এ সময় পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আ. লতিফ মোল্লাসহ উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

শিবচর পৌরসভার মেয়র মো. আওলাদ হোসেন খান বলেন, চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন এমপির পক্ষ চাল, ডাল, তেলসহ বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য ইউনিয়নে ইউনিয়নে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে।

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান বলেন, ‘করোনা সংক্রমন রোধে শিবচর বাংলাদেশে দৃষ্টান্ত। বিশেষ করে চিফ হুইপ স্যারের পক্ষ থেকে ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দেওয়ার কারণে তা সম্ভব হয়েছে।’

চিফ হুইপের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে খাবার বিতরণ

নিরেন দাস,জয়পুরহাটঃ- জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর উপজেলার রুকিন্দিপুর ইউনিয়নের চকবিলা গ্রামের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান, প্রবীণ আওয়ামী নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা মহুরম গোলাম রসুল চৌধুরীর সুযোগ্য পুত্র রুকিন্দিপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান,জেলা যুবলীগ ও জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক,৮০ দশকের সাবেক ছাত্রনেতা বর্তমান আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামীলের সাধারন সম্পাদক ও পৌর মেয়র গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসর ২০১১ সালে আক্কেপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়ে বিএনপি-জামায়াত কবলিত আক্কেলপুর উপজেলাকে আওয়ামীলীগের ঘটিতে পরিণত করেন। তিনি দলের একটি প্রধান দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে আক্কেলপুরে আওয়ামী লীগ পরিবারকে বেগবান করার জন্য তিনি দিনরাত কঠোর পরিশ্রম করতে শুরু করেন যার সুফলে সুসংগঠিত হয় একটি শক্তিশালী উন্নয়নমুখী আওয়ামীলীগ পরিবার। এদিকে দলের সাধারন সম্পাদক আবার অন্যদিকে রুকিন্দিপুর ইউপি চেয়ারম্যান তাই তিনি তিনবছর চেয়ারম্যান দায়িত্ব পালন করে স্বেচ্ছায় চেয়ারম্যানের পদ ছেড়ে দিয়ে আক্কেলপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নেন এবং এমন উদারতাকে দলীয় কিছু নেতারা গোপনে তার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে বিএনপির প্রার্থী পক্ষ নিয়ে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অল্প ভোট পরাজিত করাতে বাধ্য করান। এরপর তিনি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতীক নিয়ে ২০১৫ সালে আক্কেলপুর পৌরসভা নির্বাচন করেন যে নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয়ী হন একই সাথে আক্কেলপুর পৌরসভায় ইতিহাস রচনা করেন যে ১৯৯৯ সাল স্থাপিত এ পৌরসভায় আওয়ামীলীগের কোন প্রার্থী নির্বাচিত হতে পারেনি যা তিনিই সর্বপ্রথম আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে মেয়রের চেয়ারে বসে এখনো দায়িত্ব পালন করছেন। তার এমন (গডগিফট) রাজনৈতিক প্রতিভা আর কঠোর পরিশ্রমে একটি সুসংগঠিত আওয়ামীলীগ পরিবার তৈরি করার পরেও এবং তার দলীয় ও নেতাকর্মীদের ব্যাপক সমর্থন থাকার শর্তেও তিনি গত ১৪ এ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত আক্কেলপুর পৌরসভা নির্বাচনে স্বেচ্ছায় মেয়রের পদ ছেড়ে দিয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শহীদুল আলম চৌধুরী তিনি সমর্থন দেন এবং তাকে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মেয়র পদে বিপুল ভোটে জয়লাভ করিয়ে আর একটি ইতিহাস গড়েছেন। এদিকে পৌর নির্বাচনের আমেজ শেষ হতে না হতেই কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সিদ্ধান্তে আসছে ১১ এ মার্চ আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিকী সম্মেলনের ঘোষণা। ইতিমধ্যে সম্মেলনের সকল প্রস্তুতি সম্পূর্ণ করতে দিনরাত দেদারে পরিশ্রম করছেন দলের সাধারন সম্পাদক ও বর্তমান পৌর মেয়র গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসর। কিন্তু গত বৃহস্পতিবার সন্ধায় আক্কেলপুর সরকারি মুজিবর রহমান সরকারি কলেজ মাঠে সম্মেলন কে সফল করার লক্ষে একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসর উপজেলা,পৌর,ইউপি আওয়ামীলীগ সহ সকল সহযোগী ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দদের উপস্থিতিতে তার বক্তব্যে ঘোষনা দিয়ে বলেন মেয়র পদ থেকে যেমন স্বেচ্ছায় সরে দাঁড়িয়েছি ঠিক তেমনি ১১ এ মার্চ আসন্ন আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনেও স্বেচ্ছায় সাধারন সম্পাদক পদ ছেড়ে দিচ্ছি এমনকি উক্ত সম্মেলনে আমি কোন প্রার্থীও হবোনা বলেও জানান। তার এমন স্বেচ্ছায় সকল পদ ছেড়ে দেওয়ার ঘোষনার পর থেকেই উপজেলা আওয়ামীলীগ পরিবারের তৃনমূল বঞ্চিত নেতাকর্মীরা চরম হতাশ হয়ে পড়েছেন।আবার অনেকেই ভাবছেন তিনি চলে গেলে এমন শক্তিশালী আওয়ামীলীগ আর কোন নেতা কি তৈরি করতে পারবে। এই অবসর চৌধুরী কে নিয়ে ইতিমধ্যে ব্যাপক আলোচনা ঝড় বইছে আক্কেলপুর পৌর সদর সহ উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়ন গুলোতে কেউ হারাতে চাচ্ছেনা এমন একজন পরিশ্রমী অভিভাবক কে। এমনকি তিনি যেন আক্কেলপুরের রাজনীতি থেকে শড়ে না জান এমন বিষয়টি নিয়েও অসংখ্য নেতাকর্মীরা তাদের ফেইসবুক আইডি থেকে জাতীয় সংসদের মাননীয় হুইপ,কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক ও জয়পুরহাট-২ আসনের সাংসদ আক্কেলপুর, কালাই ক্ষেতলাল উপজেলা বাসীর অভিভাবক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন-এমপি”র সুদৃষ্টি আকর্ষণ করে লিখছেন যে গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসর যেন আক্কেলপুরের রাজনীতি থেকে না যেতে না পারেন আপনি অভিভাবক আপনি তাকে যা বলবেন তিনি তাই শুনবেন। গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসরের পক্ষে নেতাকর্মীদের সর্মথক ও দলীয় ব্যাপক জনপ্রিয়তা থাকা শর্তেও তিনি কেন-? স্বেচ্ছায় সকল পদ থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন এমন বিষয়টি নিয়ে তার সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের আদর্শ বুকে ধারণ করে,আমার প্রাণপ্রিয় নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার রাজনীতি করি,তাই আমি বিশ্বাস করি একজন ব্যক্তি একই জায়গায় বসে নেতৃত্ব দেয়া ঠিক হবে না। কেননা দলের অসংখ্য ত্যাগী প্রতিভাবান নেতৃত্বদানকারীরা রয়েছেন তাদেরও সুযোগ দেয়া উচিৎ বলেই আমার প্রতি নেতাকর্মী সহ দলীয় ব্যাপক সর্মথক থাকা শর্তেও স্বেচ্ছায় আমি সকল পদ ছেড়ে দিচ্ছি। তিনি আরো বলেন যে আমার এ ঘটনা হয়তো বাংলাদেশে একটি ইতিহাস হবে যে তিনি চেয়ারের লোভ না করে দলের অন্যদের দায়িত্ব দিতে স্বেচ্ছায় সকল পদ ছেড়ে দিয়েছেন। আপনি কি-? শুধু পদই ছেড়ে দিচ্ছেন নাকি আক্কেলপুর তথা আওয়ামী রাজনীতিই ছেড়ে দিচ্ছেন এমন জবাবে তিনি বলেন, কখনওই না আমার বাবা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন আমি তারই সন্তান আমার জীবন যতদিন থাকবে আওয়ামীলীগের রাজনীতি থেকে কেউ আমাকে সরাতে পারবে না ইনশাআল্লাহ। এমনকি অনেকেই মনে করছেন আমি স্বেচ্ছায় সকল পদ ছেড়ে দিচ্ছি বলে হয়তো আক্কেলপুর থাকবো না এমন ধারণা টি তাদের ভুল কেননা আমি আক্কেলপুরের সন্তান আমার মৃত্যুর পর দাফনো হবে এই পবিত্র আক্কেলপুরের মাটিতে। তাই আপনাদের মাধ্যমে সকলকে জানাতে আমি বিগত দিনে আক্কেলপুর বাসীর সুখেদুঃখে যেমন পাশে ছিলাম, ঠিক তেমনি আগামীতেও সকলের সুখেদুঃখে পাশে থাকবো। আর এতে আমি প্রমাণ করে দেখাবো যে শুধু চেয়ারে বসেই জনগণের সেবা করা যায় তা তা ভুল, চেয়ার ছাড়াও যে জনগণের সেবা করা যায় তা আমি করে দেখাবো বলে তিনি সাংবাদিকদের জানান।

Niren sent Today at 2:06 AM


স্বেচ্ছায় মেয়র ও দলীয় পদ ছেড়ে দেয়াই পরিশ্রমী নেতা অবসর চৌধুরীকে নিয়ে হতাশ আওয়ামী পরিবার


ঢাকা, ১৪ জুলাই, ২০১৯ (চ্যানেল ২৬) : ঝুঁকি কমাতে সাধারণ বীমা কর্পোরেশনের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর ‘ইন অরবিট’ (কক্ষ পথ) বীমা করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। এ বীমা অংক বাংলাদেশি টাকায় ১৩৪ কোটি ২৮৮ লাখ টাকা। বীমার প্রিমিয়াম ধরা হয়েছে বাংলাদেশি টাকায় ৫ কোটি ৬৮ লাখ ২৭ হাজার টাকা। ভ্যাট হিসেবে সরকারি কোষাগারে জমা হচ্ছে বাংলাদেশি টাকায় ৮৫ লক্ষ ২৪ হাজার টাকা।

ইতিমধ্যে সাধারণ বীমা সরকারের গৃহীত মেগা প্রকল্প সমূহ যেমন- মাতারবাড়ী কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, সিঙ্গেল লাইন ডুয়েল গেজ রেলপথ দোহাজারী থেকে কক্সবাজার, পদ্মা ব্রিজ রেল লিংক, রূপপুর নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট, বঙ্গবন্ধু টানেল ও মেট্টো রেল প্রকল্পগুলোর বীমা ঝুঁকি গ্রহণ করে অর্থনৈতিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে।

এ বছরের ১১ জুলাই থেকে ২০২০ সালের ১০ জুলাই পর্যন্ত এক বছরের জন্য ফ্রান্সের কোম্পানি থ্যালাস অ্যালেনিয়াকে বাদ দিয়ে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান সাধারণ বীমা কর্পোরেশনের সঙ্গে করা হচ্ছে এ বীমা পলিসিটি। এর ফলে দেশের সম্পদ দেশেই থাকছে বলে মনে করেন বীমা সংশ্লিষ্টরা।

সাধারণ বীমা কর্পোরেশনের জনসংযোগ বিভাগ জানায়, অনেক চেষ্টার পর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বীমা ঝুঁকি গ্রহণ করেছে সাধারণ বীমা কর্পোরেশন। দেশের সম্পদ দেশে রাখতেই এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এতে দেশের বীমার প্রতি সাধারণ মানুষের আস্থা বাড়বে এবং সাধারণ বীমা কর্পোরেশনের সঙ্গে দেশি বীমা কোম্পানির পাশাপাশি বিদেশি বীমা কোম্পানি গুলো বীমা করতে উৎসাহিত হবে।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বীমা ঝুঁকি গ্রহণ করল সাধারণ বীমা কর্পোরেশন

নিউজ ডেক্স: আসন্ন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নর্বাচনে ৩২নং ওয়ার্ডে সবচেয়ে জনপ্রিয়তায় এগিয়ে রয়েছেন ত্যাগী-নিবেদিতপ্রাণ ও গণমানুষের নেতা জাতীয় পাটির ঢাকা মহানগর-উত্তরের প্রচার সম্পাদক ও মোহাম্মদপুর থানা জাতীয় পাটির সাধারণ সম্পাদক এস.এম হাসেম।

সরোজমিনে গিয়ে এলাকাবাসীর সাথে কথা বললে, তারা জানান এস.এম হাসেমকে ৩২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসেবে দেখতে চাই। জনশ্রুতি রয়েছে, তরুন এ জননেতার কাছে যেকোন পেশা শেণীর মানুষই তাদের সমস্যা নিয়ে তার খুব কাছাকাছ যেতে পারেন এবং তিনি ভূক্তভোগীদের কথা মন দিয়ে শুনে তাতক্ষনিক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেন। এ কারণে এলাকার জনগণ তাকে মানবতার মুকুল নামে উপাধি দিয়েছে।

এলাকাবাসীর আরো জানান, এলাকা আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখা, চাঁদাবাজী সন্ত্রাস-মাস্তানি বন্ধ এবং দূর্নীতির জঙ্গীবাদ-এর বিরুদ্ধে তাঁর শক্ত অবস্থান, তাই এই ৩২নং ওয়ার্ডে এস.এম হাসেম জনপ্রিয়তার শীর্ষে বা বিকল্প কোন নেতা এখনও এই ৩২নং ওয়ার্ডে সৃষ্টি হয়নি।

তরঙ্গ নিউজের সাথে এক সাক্ষাত্কারে কাউন্সিলর প্রার্থী এস.এম হাসেম বলেন, আমি এলাকাবাসীর সেবা করার জন্য নির্বাচন করবো্ জনগন আমাকে নির্বাচিত করলে এলাকার সকলের সহযোগীতা নিয়ে জনগনের জন্য কাজ করে যাবো।আমার বিশ্বাস জনগণ আমাকে যোগ্য মনে করে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবেন।

এস.এম হাসেম ৩২নং ওয়ার্ডবাসীর উদ্দেশ্যে বলেন, আপনাদের একান্ত আপনজন হয়ে প্রতিদিন পাশে থাকতে চাই আপনাদের হাসি-আনন্দ ও সুখ-দুঃখে। এলাকার উন্নয়ন, নাগরিক দাবী আদায়ের সহযাত্রী ও সব ধরনের সামাজিক কর্মকান্ডে সব সময় আপনাদের পাশে থাকবো। যদি মনে করেন আপনাদের চাওয়া পাওয়ার কথা উচ্চারিত হোক কোন বলিষ্ঠ কন্ঠে তবে আমার বলতে দিন।আপনাদের জন্য আমাকে কিছু করার সুযোগ দিন।আমি আপনাদের ভিড় থেকেই উঠে আসা আপনাদেরই একজন। আপনারা ভালো থাকলে ৩২নং ওয়ার্ডবাসী ভালো থাকবে,আমাদের রাজধানী ঢাকা ভালো থাকবে এবং ভালো থাকবে আমাদের সোনার বাংলাদেশ। তাই সকল দিক বিবেচনা করে আমাকে আসন্ন ঢাকা সিটি করপোরেশন উত্তর এর ৩২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হিসেবে আমাকে একটি ভোট দিন।

ডিএনসিসিনির্বাচনে ৩২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে জনপ্রিয়তার শীর্ষে এস.এম হাসেম

লোহাগাড়া প্রতিনিধি মোঃ কাউছার আলম:০৪/১০/২০১৯ চট্টগ্রামের লোহাগাড়া আমিরাবাদ হোটেল ও আই সি হলরুমে জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে এক জরুরী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের সম্মানিত সভাপতি প্রবীণ সাংবাদিক এমএ তাহের (তারেক) জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক লোহাগাড়া শাখা সাংবাদিক মুহাম্মদ ঈসা পবিত্র কোরআন তেলােওয়াতের মাধ্যমে সভা অনুষ্ঠান শুরু করে। সঞ্চালনা ছিলেন জাহাঙ্গীর আলম তালুকদার, সাধারণ সম্পাদক জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন লোহাগাড়া উপজেলা শাখা, এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক , লোহাগাড়া প্রেস ক্লাবের সম্মানিত সভাপতি, বাংলাদেশ ভূমি হীন আন্দোলন লোহাগাড়া উপজেলা শাখার সম্মানিত সভাপতি , জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগীয় আইন বিষয়ক সম্পাদক , দৈনিক ওলামা কন্ঠ চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা প্রতিনিধি এডভোকেট মুহাম্মদ মিয়া ফারুক, সহ-সভাপতি হারুনুর রশিদ, আরো উপস্থিত ছিলেন তুষার আহামেদ কাইছার শিহাব উদ্দিন শিহাব চ্যানেল কর্ণফুলি, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন বান্দরবান পার্বত্য জেলার কার্যনির্বাহী সদস্য আবুল কাশেম, জেলা কৃষক লীগ নেতা নূরুল ইসলাম ভান্ডারী, ইসমাইল হোসেন সোহাগ সাধারণ সম্পাদক জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন লামা উপজেলা শাখা,জিয়া হোসেন, বাবুল চৌধুরী, মোঃ কাউছার আলম, মুহাম্মদ ঈসা দপ্তর সম্পাদক জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন লোহাগাড়া উপজেলা শাখা , আব্বাছ উদ্দিন দৈনিক মানবাধিকার ক্রাইম বার্তার সাতকানিয়া ও লোহাগাড়া প্রতিনিধি ও জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন লোহাগাড়া উপজেলা শাখার কার্যনির্বাহী সদস্য , রফিকুর রহমান দৈনিক মানবাধিকার ক্রাইম বার্তা লোহাগাড়া প্রতিনিধি ও জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন লোহাগাড়া উপজেলা শাখা কার্যনির্বাহী সদস্য, মুহাম্মদ ফাহিম রিপোর্টার, জাতীয় দৈনিক মুক্তালোক, জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন লোহাগাড়া উপজেলা শাখা কার্যনির্বাহী সদস্য, আরো উপস্থিত ছিলেন সাইফুল ইসলাম, রমজান আলী, মুহাম্মদ এমরান সহ প্রমুখ। উল্লেখ্য যে, উক্ত এ বৈঠকে সংগঠনের লোহাগাড়া উপজেলা শাখার জন্যে স্থায়ী অফিসের ব্যবস্থা, শিক্ষা সফর ও সাংবাদিকদের কল্যাণে বিষয় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের এর উদ্যোগে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

নিরেন দাস(জয়পুরহাট)প্রতিনিধিঃ- জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার বুড়াইল সরদার পাড়া গ্রামে পূর্ব শত্রুতার জেড়ধরে পরিকল্পিত যোগসাজশে হত্যার উদ্দেশ্যে দলবদ্ধভাবে হামলা চালিয়ে (এসএসসি পরীক্ষার্থী) জাফিকুর রহমান অমি (১৫) ও তার মা মোছাঃ আছমা খাতুন (৪০) কে পিটিয়ে গুরুতর জখম ও শ্লীলতাহানি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার পর থেকে হামলাকারীরা অর্থবান ও ক্ষমতাধর হওয়াই আহতরা যেন থানায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা না করতে যায় এ জন্য প্রাণনাশের হুমকি ও বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখালে বিষয়টি আহত পরীক্ষার্থী অমি”র চাচা মোঃ আব্দুল হাই মিলন জানতে পেরে তিনি নিজেই বাদী হয়ে হামলাকারী ৬ জনের বিরুদ্ধে (৫-ফেব্রুয়ারি) ক্ষেতলাল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। হামলাকারী আসামীরা হলেন,উপজেলার বুড়াইল সরদার পাড়া গ্রামের মৃতঃ- মোত্তালেব সরদারের ছেলে (১) মেহেদি হাসান,(২) মোস্তাক হোসেন নাহাজ,(৩) মোঃ মোসাদ্দেক হোসেন জগলুল,(৪) আসামী মেহেদির স্ত্রী মোছাঃ আনোয়ারা আক্তার নূপুর,(৫) আসামী মোস্তাকের স্ত্রী মোছাঃ নাজমুন নাহার ও একই গ্রামের মোঃ মাফতুম হোসেনের স্ত্রী (৬) পাখি বেগম। উক্ত মামলার বিবরণ ও স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, (গত ৩ এ-ফেব্রুয়ারি) সোমবার শুরু হয় এসএসসি-সমমান-২০ পরীক্ষা প্রথম দিনের পরীক্ষা শেষে ওই দিন সন্ধায় অমি তার নিজ ঘরে পড়ছিল হঠাৎই সে শুনতে পারে বাহিরে বেজোড়ে চিৎকার চেঁচামেচি হচ্ছে যা পূর্ব শত্রুতার জেড়ে পূর্বপরিকল্পিতভাবে তাদের বাড়ির সামনের একটি মুরগির ঘর উল্লেখিত আসামীরা ভাঙচুর করছে এমনি অবস্থায় অমি”র মা তাদের বাঁধা দিতে গেলে আসামীদের হাতে থাকা দেশীয় অস্ত্র ও ইটপাটকেল দ্বারা মাথায় আঘাত করছে পাশাপাশি পড়নের কাপড়চোপড় ছিঁড়ে শ্লীলতাহানি করার দৃশ্য দেখে অমি ঘর থেকে দৌড়ে গিয়ে তার মা কে রক্ষা করার চেষ্টা করলে তাকে লক্ষ করে হত্যার উদ্দেশ্যে সজোরে মাথায় লোহার রড দ্বারা আঘাত করলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে তার মা ছেলেকে বাঁচাতে চিৎকার দিলে স্থানীয় পার্শ্ববর্তী মোঃ মনতাছির মামুন সনি,মোছাঃ শাহানা আক্তার ও লাইজু বেগম সহ আরও অন্যান্যরা এগিয়ে এলে হামলাকারীরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়,ততক্ষণিক ওই স্থানীয়রা অমি ও তার মা কে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে ভ্যানযোগে ক্ষেতলাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। বর্তমানে তারা এখনো চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ বিষয়ে ক্ষেতলাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএসএম সিদ্দিকুর রহমান জানান,হামলাকারীদের বিরুদ্ধে পরীক্ষার্থী”র চাচা আব্দুল হাই মিলন বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দিলে মামলাটি আমলে নিয়ে,আমার থানা পুলিশ এ ঘটনা তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেয়েছে। এতে আসামীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে। এমনকি তাদেরকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে বলেও তিনি জানান

ক্ষেতলালে এসএসসি পরীক্ষার্থী ও তার মাকে হত্যার উদ্দেশ্যে পিটিয়ে জখম”৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা।

স্টাফ রিপোর্টার : বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার ১০ টি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীদের চুড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে ৷ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব চূড়ান্ত প্রার্থীর নাম ঘােষণা করা হয়।

বিভিন্ন ইউনিয়নে যারা মনোনয়ন পেয়েছেন তারা হলেন, ১ নং গৌরম্ভা ইউনিয়নে মোঃ রাজীব সরদার, ২ নং উজলকুড় ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুন্সী বোরহান উদ্দিন জেড, ৩ নং বাইনতলা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ইউনিয়ন সভাপতি মোঃ আব্দুল্লাহ ফকির, ৪ নং রামপাল সদরে রামপাল উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মোঃ নাসির উদ্দিন হাওলাদার, ৫নং রাজনগর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ইউনিয়ন সভাপতি সরদার আঃ হান্নান ডাবলু, ৬নং হুড়কা ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের ইউনিয়ন সভাপতি তপন গোলদার, ৭ নং পেড়িখালী ইউনিয়নে রামপাল উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম বাবুল, ৮ নং ভোজপাতিয়া ইউনিয়নে তরফদার মাহফুজুল হক , ৯ নং মল্লিকেরবেড় ইউনিয়নে তালুকদার ছাবির আহাম্মদ , ১০ নং বাঁশতলী ইউনিয়নে বাগেরহাট জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান (ভিপি সোহেল)৷

শনিবার দলের সংসদীয় এবং স্থানীয় সরকার
জনপ্রতিনিধি মনােনয়ন বাের্ডের যৌথসভায় এসব প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এই যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং সংসদীয় স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনােনয়ন বাের্ডের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রামপালে ইউপি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী হলেন যারা

themesbazartvsite-01713478536
error: Content is protected !!